Recent Post

8/recent/ticker-posts

Header Ads Widget

বন্ধ হচ্ছে না আন-অফিশিয়াল ফোন।।Bangladesh to shut illegal, fake mobile phones from 2021.


Unofficial phone is not being turned off.

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) অবৈধ মুঠোফোন বন্ধের স্বয়ংক্রিয় কার্যক্রম আগামী ১ জুলাই থেকে শুরু করতে চায়। সংস্থাটির নতুন চেয়ারম্যান শ্যামসুন্দর সিকদার বলেছেন, এই প্রযুক্তি চালু হলেও মানুষের হাতে থাকা অবৈধ মুঠোফোন বন্ধ হবে না। তবে এরপর থেকে কোনো অবৈধ মুঠোফোন নেটওয়ার্কে চালু করা যাবে না।

গত বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে বিটিআরসির চেয়ারম্যান এসব তথ্য জানান। এতে আরও জানানো হয়, ১৬ জানুয়ারি মোবাইল অপারেটরগুলো হাতে হাতে বা ম্যানুয়াল ব্যবস্থায় নতুন ফোন নেটওয়ার্কে যুক্ত হওয়ার তথ্য বিটিআরসিকে দেওয়া শুরু করবে। এতে একটু বাড়তি সময় নিয়ে অবৈধ মুঠোফোনগুলো শনাক্ত করা যাবে। পরে স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতি চালু হলে অল্প সময়ের মধ্যেই মুঠোফোন বৈধ না অবৈধ, তা ধরা পড়বে।


মুঠোফোন অফিশিয়াল না আন-অফিশিয়াল, তা যাচাই করতে ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডেনটিটি রেজিস্ট্রার (এনইআইআর) নামের এই ব্যবস্থা চালু ও পরিচালনার জন্য সিনেসিস আইটি নামের একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করেছে বিটিআরসি। চুক্তি অনুযায়ী ৯ জুনের মধ্যে তাদের অবৈধ মুঠোফোন বন্ধের প্রযুক্তিগত সমাধান তৈরি করার কথা।
বিটিআরসি জানিয়েছে, তাদের তথ্যভান্ডারে এখন পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ১৪ কোটি আইএমইআই নম্বর সংযোজন করা হয়েছে। ৭ কোটি ১৯ লাখ মুঠোফোন সেটের তথ্য রয়েছে। সংস্থাটির মহাপরিচালক (সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিস) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাসিম পারভেজ বলেন, ১ জুলাই থেকে এনইআইআর চালু হলে গ্রাহকের হাতে থাকা মুঠোফোনগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিবন্ধিত হয়ে যাবে।


অনুষ্ঠানে বিটিআরসির পক্ষ থেকে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০২০ সালের নভেম্বর পর্যন্ত সময়ে টেলিযোগাযোগ খাতের অগ্রগতি তুলে ধরা হয়। সংস্থাটি জানায়, আলোচ্য সময়ে মুঠোফোন গ্রাহক বেড়েছে ২৮ লাখ। ইন্টারনেট গ্রাহক বেড়েছে ১ কোটি ১১ লাখ। চতুর্থ প্রজন্মের ইন্টারনেট সেবা ফোর-জির গ্রাহক বেড়েছে ১ কোটি ৬৮ লাখ। ব্যান্ডউইডথের ব্যবহার ৬৩৪ জিবিপিএস বেড়ে ১ হাজার ৮২৬ জিবিপিএসে উন্নীত হয়েছে। ব্যান্ডউইডথের দাম আর ৫০ টাকা কমিয়ে এমবিপিএসপ্রতি ৩৫০ টাকা করা হয়েছে।

অভিযোগ আছে, বাজারে একই আইএমইআই নম্বরে একাধিক মুঠোফোন রয়েছে। আবার অনেক মুঠোফোন কর ফাঁকি দিয়ে আনা। কিছু মুঠোফোন চুরি হওয়া। এসব অবৈধ মুঠোফোনের বিষয়ে জানতে চাইলে বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যামসুন্দর সিকদার বলেন, ‘বিদ্যমান মুঠোফোনগুলোকে আমরা ডিস্টার্ব না করার চিন্তাই করছি।’
অবৈধ মুঠোফোন বন্ধে বিটিআরসির এই কার্যক্রম নেওয়া হয়েছে কর ফাঁকি দিয়ে আমদানি, একই আইএমইআই নম্বর ব্যবহার করে নকল মুঠোফোন বাজারে ছাড়া ও চুরি করা ফোন ব্যবহার বন্ধে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের মতে, দেশে ২৫-৩০ শতাংশ স্মার্টফোন অবৈধভাবে আমদানি করা হয়, যার কারণে ১ হাজার থেকে ১ হাজার ২০০ কোটি টাকার রাজস্ব হারায় সরকার।

এর আগে বিটিআরসি জানিয়েছিল, বিদেশ থেকে ব্যক্তিগতভাবে নিয়ে আসা, কারও উপহার বা অনলাইনে কেনা মুঠোফোনের ক্ষেত্রে রসিদ যাচাই করে নিবন্ধন দেওয়া হবে। বিদেশ থেকে উপহার পাওয়ার ক্ষেত্রে যথেষ্ট প্রমাণ দেখাতে হবে। একই ব্যক্তি বারবার উপহার দিচ্ছেন, তা দেখানো যাবে না।
এ ছাড়া বিটিআরসি জানায়, দেশে এখন ১২টি মুঠোফোন তৈরির কারখানা হয়েছে। সেগুলোতে বিগত দেড় বছরে ৩ কোটি ৩৮ লাখ মুঠোফোন সেট তৈরি হয়েছে।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান বলেন, তিনি যোগ দেওয়ার পরই খাতসংশ্লিষ্ট অংশীজনদের সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছেন। সমস্যাগুলো জানছেন। ধাপে ধাপে সমস্যার সমাধান করবেন। গ্রাহক সেবার মানোন্নয়নে কাজ করবেন।


অনুষ্ঠানে বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র, কমিশনার আবু সৈয়দ দিলজার হুসেইন, স্পেকট্রাম বিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. শহীদুল আলম, ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড অপারেশনস বিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. এহসানুল কবির, লিগ্যাল অ্যান্ড লাইসেন্সিং বিভাগের মহাপরিচালক আশিষ কুমার কুণ্ডু, প্রশাসন বিভাগের মহাপরিচালক মো. দেলোয়ার হোসাইন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বিটিআরসির উপপরিচালক (গণমাধ্যম) জাকির হোসেন খান।



.............................. Read In English...............................................................................

The Bangladesh Telecommunication Regulatory Commission (BTRC) wants to start automated activities to stop illegal mobile phones from July 1. Shyamsunder Sikder, the new chairman of the company, said that even if this technology is introduced, the illegal mobile phones in people's hands will not be stopped. However, from now on, no illegal mobile phone network can be turned on.

The BTRC chairman said this while exchanging views with journalists on Thursday. It was further informed that on January 18, the mobile operators will start giving information to BTRC about the new phone network by hand or by manual system. It will take a little extra time to identify the illegal mobile phones. If the automated system is introduced later, it will be caught in a short time whether the mobile phone is legal or illegal.

To verify whether the mobile phone is official or unofficial, BTRC has entered into an agreement with an organization called Synesis IT to launch and operate this system called National Equipment Identity Register (NEIR). According to the agreement, a technical solution is to be made by June 9 to stop their illegal mobile phones.

According to BTRC, about 145 million IMEI numbers have been added to their database so far. There is information of 6 crore 19 lakh mobile phone sets. The company's director general (systems and services) Brigadier General. Nasim Parvez said that if NEIR is launched from July 1, the mobile phones in the hands of the customers will be registered automatically.

BTRC highlighted the progress of telecommunication sector from December 2019 to November 2020. According to the company, the number of mobile phone subscribers has increased by 2.7 million during the period under review. Internet subscribers have increased by 1 crore 11 lakh. Fourth generation Internet service Four-G subscribers have increased by 16 million. Bandwidth usage has increased from 634 Gbps to 1,628 Gbps. The price of bandwidth has been reduced by Rs 50 to Rs 350 per Mbps.

There are allegations that there are multiple mobile phones with the same IMEI number in the market. Again, many mobile phones are brought with tax evasion. Some mobile phones were stolen. Asked about the illegal mobile phones, BTRC chairman Shamsunder Sikder said, "We are thinking of not disturbing the existing mobile phones."

The BTRC has taken steps to curb illegal mobile phones by importing tax evasion, using the same IMEI number in the fake mobile phone market and stopping the use of stolen phones. According to the people concerned,About 25-30 percent of smartphones in the country are imported illegally, due to which the government loses revenue of Tk 1,000 to 1,200 crore.

Earlier, the BTRC had said that in case of a personal gift from abroad, a gift or a mobile phone bought online, registration would be given after verifying the receipt. In case of receiving gifts from abroad, sufficient proof has to be shown. The same person repeatedly giving gifts, it can not be shown.

Besides, BTRC said, there are now 12 mobile phone factories in the country. In the last one and a half years, 3 crore 36 lakh mobile phone sets have been made in them.

The BTRC chairman said he started discussions with stakeholders soon after joining. Knowing the problems. Solve the problem step by step. Will work to improve the quality of customer service.

BTRC Vice Chairman Subrata Roy Maitra, Commissioner Abu Syed Diljar Hussain, Director General of Spectrum Brigadier General. Shahidul Alam, Director General of Engineering and Operations Brigadier General. Ehsanul Kabir, Director General of Legal and Licensing Ashish Kumar Kundu, Director General of Administration. Delwar Hossain was present. BTRC Deputy Director (Media) Zakir Hossain Khan conducted the program.






Post a Comment

0 Comments